স্ট্যাটাস

মেয়েদের রাগানোর স্ট্যাটাস

পৃথিবীতে প্রতিটি মানুষের স্বভাব কিংবা আচরণে যে সমস্ত বৈশিষ্ট্য পাওয়া যায় তার মধ্যে অন্যতম একটি হচ্ছে রাগ। যা প্রতিটি মানুষের মাঝেই রয়েছে। তবে একজন মানুষের মাঝে রাগের এই বৈশিষ্ট্যের অন্য একটি মানুষের সাথে ব্যাপক পার্থক্য রয়েছে। কেননা অনেকেই রয়েছে যারা মৃদু রাগের অধিকারী অর্থাৎ যারা কথায় কথায় রাগ করে না কিংবা সহজেই রেগে যায় না।

পৃথিবীতে ছেলেদের তুলনায় মেয়েরা সাধারণত কথায় কথায় কিংবা হুট করে বেশি রেগে যায়। আবার খুব সহজেই তাদের রাগ অনেক সময় ভাঙ্গানো যায়। কিন্তু কিছু কিছু মেয়ে আছে যারা রাগ পুষে থাকতে পারে। তারা খুব সহজেই কিংবা বিভিন্ন কারনে হুট করে রেগে যায়। মেয়েদের এই হুট করে রেগে যাওয়া আচরণকে অনেকেই পছন্দ করে থাকেন।

তাইতো অনেকেই প্রিয়তমা অথবা মেয়ে বান্ধবীদের বিভিন্ন ভাবে রাগানোর চেষ্টা করে থাকেন। আজকে আমরা আমাদের এই প্রতিবেদনে মেয়েদের রাগানোর বেশ কিছু স্ট্যাটাস নিয়ে হাজির হয়েছে যেগুলোর মাধ্যমে সহজেই মেয়েদের রাগানো সম্ভব হবে।

পৃথিবীতে প্রতিটি মানুষের মাঝেই রাগের স্বভাব রয়েছে। অনেকেই আছে যারা কথায় কথায় রেগে যায় আবার অনেকেই রয়েছে যারা বড় রেগে যাওয়ার উপযুক্ত কারণ থাকতে হয়। মানুষের তীব্র অসন্তোষের বহিঃপ্রকাশ কে সাধারণত রাগ বলা হয়।

Related Articles

অর্থাৎ মানুষের জীবনের আচরণের এমন একটি সমষ্টি রাগ যার মাধ্যমে ব্যক্তি মানসিক কিংবা শারীরিকভাবে উত্তেজিত হয়ে পড়ে। এই রাগ প্রতিটি মানুষ বিভিন্নভাবে প্রকাশ করে থাকে। তবে পৃথিবীতে ছেলেদের তুলনায় মেয়েরা সাধারণত রাগ বেশি বুঝতে পারে। তারা দীর্ঘদিন যাবত অভিমানের মত মনের মাঝে রাগ জমা রাখতে পারে।

কথায় কথায় রেগে যাওয়া কিংবা হুট করে রেগে যাওয়াই হচ্ছে মেয়েদের স্বভাব। তবে সকল মেয়ে নয় বরং অধিকাংশ মেয়েরাই রয়েছে যারা ছোট বিষয়ে খুব সহজেই রেগে যায় এবং এই রাগ বিভিন্নভাবে সকলের মাঝে প্রকাশিত করে থাকে। অনেকেই রেগে গিয়ে বিভিন্ন ধরনের জিনিসপত্র ভাঙচুর করে থাকে কিংবা জিনিসপত্র ছুড়ে থাকে।

আবার অনেকেই রয়েছে যারা রেগে গেলে চুপচাপ হয়ে যায় এবং রাগ করার কারণে নিজের বিভিন্ন ধরনের ক্ষতি করে থাকে। মূলত মেয়েদের এই কথায় কথায় রাগ করাকে কেন্দ্র করে অনেকেই মেয়ে বান্ধবীদের কিংবা আপন মানুষটিকে রাগিয়ে মজা পান। তারা বাস্তবে বিভিন্ন কারণে রাগানোর পাশাপাশি সোশ্যাল মিডিয়াতে বিভিন্ন ধরনের স্ট্যাটাসের মাধ্যমে তাদের রাগানোর চেষ্টা করেন।

মেয়েদের রাগানোর স্ট্যাটাস

স্বভাবগতভাবে কথায় কথায় রেগে যাওয়া অধিকাংশ মেয়েদের একটি বৈশিষ্ট্য। তাদের এই বৈশিষ্ট্য কে কেন্দ্র করে তাই তো অনেকেই তাদের রাগিয়ে আনন্দ পান। তাইতো তারা বাস্তবে বিভিন্নভাবে মেয়েদের রাগানোর চেষ্টা করেন। এমনকি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম যেমন facebook whatsapp কিংবা instagram এ বিভিন্ন ধরনের রাগানোর এসএমএস কিংবা স্ট্যাটাস শেয়ার করে মেয়েদেরকে রাগিয়ে থাকেন।

তাই আজকে সকলের জন্য আমাদের ওয়েবসাইটে আমরা মেয়েদের রাগানোর স্ট্যাটাস গুলো নিয়ে হাজির হয়েছি যার মাধ্যমে আপনারা আপনার মেয়ে বান্ধবী কিংবা প্রিয় মানুষকে রাগাতে এই স্ট্যাটাসগুলো সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করতে পারবেন। আমাদের আজকের এই মেয়েদের রাগানোর স্ট্যাটাস গুলো আপনার বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করে তাদেরকে মেয়েদের রাগানোর স্ট্যাটাস গুলো জানাতে পারবেন। নিচে মেয়েদের রাগানোর স্ট্যাটাস গুলো তুলে ধরা হলো:

 

1. ছেলে: 50 টাকা করে বাজি, আমি না ছুঁয়ে তোমার dod টিপতে পারবো। —– মেয়ে: অসম্ভব, ঠিক আছে আমি রাজি ( ধপ ধপ করে টিপে দিলো) —– ছেলে: আমি তো বাজিতে হেরে গেলাম, এই নাও 50 টাকা।
2. যদি একবার খেতে দাও তোমার দুদু, খেয়ে হয়ে যাবো আমি সাধু।
3. ছেলেদের শার্ট, প্যান্ট পড়লেই ছেলে হওয়া যায় না। ছেলে হতে হলে নুনু লাগে রে পাগলী…!
4. অনেক দিন পর উলটা দিকে লাগাইলাম। #বিড়ি
5. Dear Ex… তোর সাথে অনেক রাত কাটানোর পর আমি খুবই অভিজ্ঞ। এখন আমি 9 মাসের বদলে 6 মাসেই পয়দা করা শিখেছি।
6. . এই পৃথিবীতে সবচেয়ে সুখী মানুষ কে জানেন। এই পৃথিবী তে সবচেয়ে সুখী মানুষ হলো সেই ব্যক্তি। যার জীবনে কোন গার্লফ্রেন্ড আসেনি। কারণ গার্লফ্রেন্ড এর জ্বালা শুধুমাত্র সেই বুঝতে পারে। যে একবার হলেও তার জীবনে কোন মেয়ে কে গার্লফ্রেন্ড হিসেবে সিলেক্ট করেছিল। তাই সময় থাকতে বুদ্ধিমান হও, আর নিজের গার্লফ্রেন্ডের তাড়িয়ে দাও।
7. ঝুলাইয়া বুকের ওড়না, দেখাইয়া পাছা। মাগী কয় আমি সতী ছেড়ে দে বাছা।
8. সফলতার অন্যতম পর্যায় পাশের বাড়ির বিদেশগামী স্বামীর স্ত্রীকে যেন বেগুন, কলা না আনতে হয় সেই ব্যবস্থা করা।
9. ক্লাস সিক্স-এর মেয়ের ব্রার সাইজ 37, ওর মা পাশের বাসায় যাইয়া লেকচার দোচায় আপনার মেয়ে খারাপ।
10. শহরের ভাষায় যেইডারে 44 বলে গ্রামের ভাষায় সেইটাকে অস্ট্রেলিয়ান গাভী বলে।
11. . সুন্দরী মেয়েরা সবসময় তার রূপের অহংকার করে। যেন তার সেই রূপ থেকে বয়ে আসছে সুন্দরের ঝরনা। কিন্তু যতই তোমার রুপের ঝরনা বয়ে আসুক না কেন। তোমাকেই একদিন করতে হবে রান্নাঘরের সকল রান্না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *