টিপস

২৬শে মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস নিয়ে উক্তি

আজকের এই অনুচ্ছেদে ২৬শে মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস নিয়ে উক্তি আলোচনা করা হয়েছে। তাই আপনারা যারা 26 মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস নিয়ে উক্তি ও অনুসন্ধান করে আমার এই অনুচ্ছেদে এসেছেন তাদের সকলকে স্বাগতম। বাঙালি জাতির সবথেকে গর্বের অর্জন হল স্বাধীনতা। ১৯৭১ সালে ২৬ শে মার্চ বাংলাদেশকে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাধীনতা ঘোষণা করা হয়।

তাই ওই দিনটিকে বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস হিসেবে পালন করা হয়ে থাকে। আজকের এই অনুচ্ছেদে আমরা বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস নিয়ে কিছু উক্তি আপনাদের জন্য শেয়ার করব। আশা করি আমার এই অনুচ্ছেদ হতে আপনি আপনার পছন্দমত স্বাধীনতা দিবসের উক্তিগুলো সংগ্রহ করতে পারবেন।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস প্রতি বছর ২৬শে মার্চ পালিত হয়। এই দিনটি পাকিস্তানের কাছ থেকে দেশের স্বাধীনতাকে স্মরণ করে, যা 1971 সালে নয় মাস দীর্ঘ স্বাধীনতা যুদ্ধের পর অর্জিত হয়েছিল।1971 সালের 26 মার্চ, তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান (বর্তমানে বাংলাদেশ) পশ্চিম পাকিস্তান থেকে তার স্বাধীনতা ঘোষণা করে, একটি নৃশংস যুদ্ধ শুরু করে যা সেই বছরের ডিসেম্বর পর্যন্ত চলে।

যুদ্ধের ফলে বাংলাদেশের স্বাধীনতা হয়, এবং একটি নতুন জাতির জন্ম হয়। স্বাধীনতা দিবসে, বাংলাদেশিরা তাদের দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বকে অত্যন্ত উৎসাহ ও জাতীয়তাবাদী উচ্ছ্বাসের সাথে উদযাপন করে। দিনটি সারা দেশে কুচকাওয়াজ, পতাকা উত্তোলন অনুষ্ঠান এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান দ্বারা চিহ্নিত করা হয়। জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া হয়, এবং সমস্ত সরকারী এবং সরকারী ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়।

Related Articles

বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস নিয়ে উক্তি

সাভারে জাতীয় শহীদ স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে দেশের স্বাধীনতার জন্য জীবন উৎসর্গকারী শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান মানুষ। দিনটি বাংলাদেশে একটি সরকারি ছুটির দিন, এবং সর্বস্তরের মানুষ উৎসবে অংশগ্রহণ করে।

সামগ্রিকভাবে, স্বাধীনতা দিবস বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি তাৎপর্যপূর্ণ দিন, এবং এটি বাংলাদেশিদের জন্য তাদের দেশের অতীত সংগ্রাম এবং অর্জনের প্রতিফলন এবং একটি উজ্জ্বল ভবিষ্যতের জন্য উন্মুখ হওয়ার সময়।
উপরে উল্লিখিত ক্রিয়াকলাপগুলি ছাড়াও, বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসটি বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান দ্বারা চিহ্নিত করা হয়, যার মধ্যে সঙ্গীত, নৃত্য এবং থিয়েটার পরিবেশনা রয়েছে যা দেশের সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য প্রদর্শন করে।

তোমরা আমাকে রক্ত দাও, আমি তোমাদের স্বাধীনতা দেব।”- নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসু

“দেশের স্বাধীনতা শুধু বীরত্বের মধ্যে দিয়েই অর্জন করা যায় না।“- মহাত্মা গান্ধী

” স্বাধীনতা মানুষের প্রথম এবং মহান একটি অধিকার।“- মিল্টন

“স্বাধীনতা একটি সুযোগর নাম যার মাধ্যমে আমরা যা কখনই হতে পারার কল্পনা করতে পারি না তা হতে পারি।” – ড্যানিয়েল যে ব্রুস্টিন

“স্বাধীনতা ছাড়া একটি জীবন মানে আত্মা ছাড়া শরীর।” – কাহলিল জিব্রান

স্বাধীনতার জন্য লড়াই করে মৃত্যু বরণ করা পরাধীনতায় সারাজীবন কাটানোর থেকে অনেক ভালো। – বব মার্লে

“ ব্যক্তি জন্ম নেয় এক মুষ্টি ধুলি থেকে সরল দীন, ব্যক্তির অন্তর থেকে জন্ম নেয় এক জাতি। ” – আল্লামা ইকবাল

“ আমি একটি স্বাধীন দেশের নাগরিক এর চাইতে বড় গৌরব আর কিসে হতে পারে ?” – জে. আর লাওয়েল

“নিজের দেশকে ভালোবাসা যদি অপরাধ হয়, তাহলে আমি অপরাধী।” – ঋষি অরবিন্দ ঘোষ

“একটি দেশের মহানতা এবং নৈতিক প্রগতি এই বিষয়ে মাপা যেতে পারে যে সেই দেশে জন্তু-জানোয়ার দের সাথে কি রকম ব্যবহার করা হয়।” – মহাত্মা গান্ধী

স্বাধীনতা দিবস নিয়ে বঙ্গবন্ধুর উক্তি

এছাড়াও দেশব্যাপী মিছিল অনুষ্ঠিত হয়, লোকেরা ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরে এবং দেশাত্মবোধক স্লোগান সহ ব্যানার এবং প্ল্যাকার্ড বহন করে। স্কুল, কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলি এই অনুষ্ঠানকে চিহ্নিত করার জন্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করে, যেমন রচনা প্রতিযোগিতা, বিতর্ক এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

দিবসটি সরকারের জন্য গণতন্ত্র, স্বাধীনতা এবং মানবাধিকারের নীতির প্রতি প্রতিশ্রুতি পুনর্নিশ্চিত করার একটি উপলক্ষও। বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী এই দিনে জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন, দেশের অগ্রগতি তুলে ধরেন এবং ভবিষ্যতের জন্য তাদের পরিকল্পনার রূপরেখা দেন।

  • “এটাই হয়ত আমার শেষ বার্তা, আজ থেকে বাংলাদেশ স্বাধীন। আমি বাংলাদেশের মানুষকে আহ্বান জানাই, আপনারা যেখানেই থাকুন, আপনাদের সর্বস্ব দিয়ে দখলদার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে শেষ পর্যন্ত প্রতিরোধ চালিয়ে যান। বাংলাদেশের মাটি থেকে সর্বশেষ পাকিস্তানি সৈন্যটিকে উত্খাত করা এবং চূড়ান্ত বিজয় অর্জনের আগ পর্যন্ত আপনাদের যুদ্ধ অব্যাহত থাকুক” – বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।
  • আমরা যখন মরতে শিখেছি, তখন কেউ আমাদের দাবাতে পারবে না।
  • এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম!
  • মানুষকে ভালোবাসলে মানুষও ভালোবাসে। যদি সামান্য ত্যাগ স্বীকার করেন, তবে জনসাধারণ আপনার জন্য জীবন দিতেও পারে।
  • আমার সবচেয়ে বড় শক্তি আমার দেশের মানুষকে ভালবাসি, সবচেয়ে বড় দূর্বলতা আমি তাদেরকে খুব বেশী ভালবাসি।
  •  প্রধানমন্ত্রী হবার কোন ইচ্ছা আমার নেই। প্রধানমন্ত্রী আসে এবং যায়। কিন্তু, যে ভালোবাসা ও সম্মান দেশবাসী আমাকে দিয়েছেন, তা আমি সারাজীবন মনে রাখবো।
  •  সাত কোটি বাঙ্গালির ভালোবাসার কাঙ্গাল আমি। আমি সব হারাতে পারি, কিন্তু বাংলাদেশের মানুষের ভালোবাসা হারাতে পারব না।
  • বিশ্ব দুই শিবিরে বিভক্ত – শোষক আর শোষিত। আমি শোষিতের পক্ষে।
  • এই স্বাধীন দেশে মানুষ যখন পেট ভরে খেতে পাবে, পাবে মর্যাদাপূর্ণ জীবন; তখনই শুধু এই লাখো শহীদের আত্মা তৃপ্তি পাবে।
  •  দেশ থেকে সর্বপ্রকার অন্যায়, অবিচার ও শোষণ উচ্ছেদ করার জন্য দরকার হলে আমি আমার জীবন উৎসর্গ করব।
  •  আমি যদি বাংলার মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে না পারি, আমি যদি দেখি বাংলার মানুষ দুঃখী, আর যদি দেখি বাংলার মানুষ পেট ভরে খায় নাই, তাহলে আমি শান্তিতে মরতে পারব না।

স্বাধীনতা নিয়ে রবীন্দ্রনাথের উক্তি

বিদেশে বসবাসকারী প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্যও স্বাধীনতা দিবস একটি গুরুত্বপূর্ণ উপলক্ষ। তারা দিনটি চিহ্নিত করার জন্য অনুষ্ঠান এবং সমাবেশের আয়োজন করে এবং দেশে ফিরে তাদের সহকর্মী দেশবাসীর সাথে তাদের সংহতি প্রদর্শন করে।

  • যেখানে মন ভয়হীন এবং মাথা উঁচু, যেখানে জ্ঞান মুক্ত। যেখানে পৃথিবীকে সংকীর্ণ ঘরোয়া দেয়াল দিয়ে টুকরো টুকরো করা হয়নি। যেখানে সত্যের গভীর থেকে শব্দ বেরিয়ে আসে, যেখানে অক্লান্ত পরিশ্রম তার বাহু প্রসারিত করে পরিপূর্ণতার দিকে। যেখানে যুক্তির স্বচ্ছ স্রোত তার পথ হারায়নি মৃত অভ্যাসের নির্জন মরুভূমির বালিতে। যেখানে মন আপনার দ্বারা সদা প্রশস্ত চিন্তা ও কর্মের দিকে পরিচালিত হয়। স্বাধীনতার সেই স্বর্গে, আমার পিতা, আমার দেশ জাগ্রত হোক!——–রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
  • যেখানে মন ভয়হীন এবং মাথা উঁচু যেখানে জ্ঞান মুক্ত।—-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
  • যেখানে মনকে তোমার দ্বারা নিরন্তর প্রসারিত চিন্তা ও কর্মে নিয়ে যাওয়া হয়- সেই স্বাধীনতার স্বর্গে, বাবা, আমার দেশকে জাগ্রত করুক।—-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

সামগ্রিকভাবে, বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস জাতীয় গর্ব, ঐক্য এবং স্মরণের দিন। এটি বাংলাদেশের জনগণের জন্য তাদের অর্জন উদযাপন করার, তাদের শহীদদের সম্মান জানানোর এবং একটি সমৃদ্ধ ও গণতান্ত্রিক দেশ গড়ার প্রতিশ্রুতি পুনর্নবীকরণ করার সময়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *